সুস্বাস্থ্য.কম

সুস্থ্য দেহ ও সতেজ মনের জন্য...

  • Increase font size
  • Default font size
  • Decrease font size

ধুমপান ত্যাগের উপকারীতা

E-mail Print

মনে রাখবেন ধুমপায়ীর শরীরের তাপমাত্রা অধুমপায়ীদের চেয়ে একটু বেশী থাকে এবং ধুমপান ত্যাগের ২০মিনিটের মধ্যেই আপনি লক্ষ্য করবেন আপনার তাপমাত্রা স্বাভাবিক পর্যায়ে নেমে আসা শুরু করেছে, ২০ মিনিটের মধ্য আপনার রক্তের কার্বন মনোক্সাইড (carbon mono oxide) নামক বিষাক্ত রাসায়নিকের মাত্রা অর্ধেকে নেমে আসে, ২৪ ঘন্টা ধুমপান থেকে বিরত থাকলে আপনার হৃদরোগ (heart attack) হবার ঝুকি ধীরে ধীরে কমতে শুরু করে।ধুমপান ত্যাগের ১৫দিন থেকে তিন মাসের মধ্যে আপনার ফুসফুসের কার্যক্ষমতা ৩০ শতাংশ বেড়ে যাবে এবং শরীরের সর্বত্র রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি পাবে,  ধুমপান ত্যাগের ১ বছরের মধ্য আপনার হৃদরোগে আক্রান্ত হবার ঝুকি অর্ধেকে নেমে আসবে।

কেউ যদি ৫ বছরের বেশী সময় ধরে ধুমপান ত্যাগ করে তবে তার মস্তিস্কে স্ট্রোক (brain stroke) হবার ঝুকি অধুমপায়ীদের পর্যায়ে নেমে আসবে। ধুমপান ত্যাগের ১০ বছর পর মুত্রথলি, কিডনি এবং অন্ত্র, অগ্নাশয়ে ক্যান্সার হবার ঝুকি স্বাভাবিক পর্যায়ে নেমে আসে। ধুমপান ত্যাগের ১৫ বছর পর ফুসফুসের ক্যান্সার বা হৃদরোগ হবার ঝুকি অধুমপায়ীদের সমপর্যায়ে  নেমে আসে। তাই আপনি যদি এখনো ব্যাপক ধূমপায়ী (massive smoker) হয়ে থাকুন তবে তা থেকে সরে আসুন এবং পুরোপুরি ঝুকিহীন স্বাভাবিক জীবনে চলে আসুন।

 

 

সুস্বাস্থ্য সুপারিশ করুন

এই সাইটের সকল তথ্য শুধুমাত্র চিকিৎসা সংক্রান্ত জ্ঞানার্জন ও সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রকাশিত যা কোন অবস্থাতেই চিকিৎসকের বিকল্প নয়রোগ নির্নয় ও তার চিকিৎসার জন্য সংশ্লিস্ট চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া বাঞ্ছনীয়